শিরোনাম
ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫
প্রথম পাতা » বিবিধ » শক্তি ফাউন্ডেশন দরিদ্র অসহায় সুবিধা বঞ্চিত মহিলাদের অর্থসামাজিক উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।
বুধবার ● ২৮ মার্চ ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

শক্তি ফাউন্ডেশন দরিদ্র অসহায় সুবিধা বঞ্চিত মহিলাদের অর্থসামাজিক উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

---শক্তি ফাউন্ডেশন একটি বেসরকারি উন্নয়নমূলক সংস্থা। সংস্থাটি ১৯৯২ইং সাল থেকে দরিদ্র  অসহায় সুবিধা বঞ্চিত মহিলাদের অর্থসামাজিক উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।  সংস্থাটি সঞ্চয় ও ঋণ কার্যক্রম এর পাশাপাশি নিন্মোক্ত কার্যক্রম গুলি বাংলাদেশের ৫৬টি জেলা শহরের ৬ লক্ষ বস্তিবাসি মহিলাদের সরাসরি নিন্মোক্ত সেবা প্রদান করে আসছে।

১) স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম-সদস্যদের স্বাস্থ্য অনুদান ও সুদ বিহীন স্বাস্থ্য ঋণ প্রদান করা হয়তবে স্বাস্থ্য অনুদান বেশী প্রদান করা হয় সদস্য ও তার পরিবারে লোকদের বড় ধরণের অসুখের জন্য)

---২) শিক্ষাবৃত্তি প্রদান (উপকারভোগী সদস্যদের মেধাবী সন্তানদের মেধার ভিত্তিতে পিএসসিজেএসসি,এসএসসি ও এইচ এসসিতে বৃত্তি প্রদান এবং উচ্চত্তর শিক্ষার্থীদের শিক্ষার উপকরণ হিসাবে ল্যাপটপ প্রদান করা হয়।)

৩) জেন্ডার বিষয়ক সচেতনাবৃদ্ধি মূলক কাজ যেমন-

·       নির্যাতিত নারীদের ন্যায় বিচার  পাবার ব্যবস্থা গ্রহণ।

·       বিভিন্ন নারী দিবস উদযাপন( নেটওয়ার্ক ফোরামের সাথে যৌথ এবং সংস্থা নিজেদের উদ্দেগ্যে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ করে আসছে।)

 

---৪) প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান(নারীদের কে বিনামূল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় কম্পিউটার লিটারেসি  এবং র্হ্ডাওয়ার বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান) প্রশিক্ষণ শেষে  কম্পিউটার বিষযক কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সহজ পদ্ধতিতে প্রয়োজনীয় ঋণ প্রদান করা হয়।

৫) দুযোর্গ মোকাবেলার জন্য সদস্য কল্যাণ তহবিল রয়েছে উক্ত তহবিল থেকে যে সাহায্য প্রদান করা হয় তা হচ্ছে:

·       আগুনে পুড়াবন্যাঘুর্নিঝড়,সড়ক দুঘর্টনালঞ্চ ডুবি তে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের পাশে দাড়ানো এবং বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা প্রদান।

 

সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক ড. হুমায়রা ইসলাম (পিএইচডি) সদস্যদের কল্যাণের জন্য  সদস্য কল্যাণ তহবিল নামে একটি ফান্ড ঘটন করেছেন। উক্ত  ফান্ড থেকে সর্বদাই দুযোর্গ মোকাবেলা করা হচ্ছে অত্যন্ত দায়িত্ব নিয়ে।

--- গত ১১/০৩/২০১৮ইং তারিখের রাত্র ৩টায় মিরপুর ১২নং পল্লবী ইলিয়াছ মোল্ল্যার বস্থিতে অগ্নিকান্ডের ঘট্নায় হাজারো ঘর পুড়ে যায়। উক্ত বস্তিতে শক্তিফাঊন্ডেশন ১০বছর ধরে কাজ করে আসছে। বস্তির ২২৯৭টি পরিবার  ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তাদের মধ্যে শক্তি সরাসরি কাজ করে ২০০টি পরিবারকে নিয়ে।

ত্রাণ ও সহযোগিতা প্রদান:

স্বাস্থ্য প্রোগ্রমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীহলেন:  লিপি সাহা,পদবী-ডেপুটি ডিরেক্টর,স্বাস্থ্যপ্রোগ্রাম। তিনি তার টিম নিয়ে এই পোড়ে যাওয়াক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে দিন  বর সেবা প্রদান করেআসছে

১)শক্তি ফাউন্ডেশন আগুনে পুড়ে যাওয়ার পর পর অর্থ্যা ১২মার্চ,২০১৮ তারিখ বিকাল থেকে  শক্তি ফাউন্ডেশন সকল ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের জন্য  বিনা মূল্যেস্বাস্থ্য সেবা প্রদান করার লক্ষ্যে অস্থায়ী ক্যাম্প বসানোহয় উক্ত ক্যাম্প থেকে সকাল ৯টা  থেকে সন্ধা ৭টাপর্যন্ত  শিশু, বয়স্ক মানুষ  নারী-পুরুষদের প্রেসারমাপা, ওজন মাপা, কাটা ছেড়া, পোড়া বিভিন্ন ক্ষতস্থানএর প্রাথমিক চিকিৎসা  বিনা মূল্যে ঔষ প্রদান  করে আসছে। চলমান রয়েছে

 

ত্রাণ কমিটি দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীহলেন: নিলুফা বেগম,পদবী-ডেপুটি ডিরেক্টর,ইডিঅফিস,ত্রাণ কমিটির  কো-চেয়ারম্যান। তিনিমিরপুর-১২ নং এরিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত রিজিওয়ন প্রধানজনাব আব্দুল মালেককে সাথে নিয়ে টিমে পোড়েযাওয়া ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে নিন্মোক্ত ত্রাণ বিতরণকরে থাকেন

১) ১২মার্চ,২০১৮ তারিখ বিকাল থেকে  শক্তি ফাউন্ডেশন  ৩০০জন ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে পাউরুটিবিস্কুট,স্যালাইন,খাবার পানি বিতরণ করা হয়।

২)দ্বিতীয় দফায় শক্তি ফাউন্ডেশন  ২০০জন ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে চাল, ডাল, ভাতের হাড়ি-১টি ডালের হাড়ি১টি + ঢাকনা সহ, শাড়ী, মশারি, গামছা বিতরন করাহয়।

৩) পুরাতন জামা-কাপড় প্রদান করা হয় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের মাঝে (বিশেষ করে শিশু ও নারীদের মাঝে)

পরবর্তীতে  শক্তির সদস্য ও অন্য ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের জন্য শক্তি কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে।


বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় শক্তি ফাউন্ডেশনের কর্মীদের অংশগ্রহণ

গোপালগঞ্জে স্কুল ছাত্রীকে শিক্ষকের কুপ্রস্তাব, রাজী না হওয়ায় বেধড়ক মারপিট!


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)